মাসুদুল হক এর কবিতাগুচ্ছ

 ভাবছি শেষতক ঘুরে দাঁড়াবো

 

ভাবছি শেষতক ঘুরে দাঁড়াবো

কেন না আমাকে দিয়ে হবে না

কোনো আয়নাবাজি

 

একটা রঙিন প্রজাপতির উড়াল দেখে

মিছেই আকাশচূড়া ছুঁয়ে দেখবার

সাধ জেগেছে

 

স্বপ্নের ভেতর পরিচিত নগর

আর নগরের ভেতর অচেনা মানুষের

ভীড়ে–আমি হারিয়ে যাচ্ছি বার বার

 

যা কিছু সহজ তার সবটুকু

আয়নার জটিল প্রতিবিম্বে মিশে যাচ্ছে

 

ভাবছি শেষতক ঘুরে দাঁড়াবো

সংসারী মানুষের ছায়া নিয়ে

যে প্রতিদিন ঘুরে বেড়ায় রাজপথে

তার আর ফেরা হবে না কোনোদিন

পুঁথিপত্রের ঘরে

 

ভাবছি শেষতক ঘুরে দাঁড়াবো

তা না হলে পাহাড়ের শেষ মাথায় এসে

খুব দূরে নিচের দিকে তাকিয়ে

মুখোশের আড়ালে মৌলিক মানুষটি

হারিয়ে যাবে

 

আরও পড়ুন- কাজী শোয়েব শাবাবের কবিতা

 

নকটার্ন

 

ঘুমাও তুমি ঘুমাও, রেললাইনের

অন্ধসড়কে উঠে গেছি আমরা

 

যা কিছু তোমার অবদমন

যা কিছু চাওয়া

বিষলাক্ষা ছুরির ঘা এড়িয়ে গেছে

 

কমলালেবুর কোয়ার মতো

পেকে আসছে সন্দর্ভের পাতা

 

সব আয়োজন শেষ

আন্তঃনগর এক্সপ্রেসের

 

তোমার হাত রেখেছ যে হাতে

দিগন্তের নকটার্নের দিকে তাকিয়ে

সে অন্ধ হয়ে গেছে

 

সমূহ বাতাসের ঘূর্ণিপাকে

ছুটে চলা তোমার শ্রীঅঙ্গের

কতোটুকু আর সে উপভোগ করবে!

 

 

তোমার সৌন্দর্য

 

তোমার সৌন্দর্য চুম্বকক্ষেত্রের

মতো অভিকর্ষ বল

 

নতজানু প্রেম তোমাকে ঘিরে

বিচূর্ণ লৌহমরিচার আবেগে

সাদা কাগজের বুকে

পড়ে থাকে এলোমেলো…

 

দাহ ও দহনের ভেদ ভুলে

তোমাকে ছুঁয়ে দেখবার মোহে

ক্ষত নিয়ে শুয়ে পড়ে

আরোগ্য নিকেতনের সফেদ চাদর

 

তোমার সৌন্দর্য চুম্বকক্ষেত্রের মতো

আমাকে গ্রাস করছে

 

লাবণ্যময়ী চাঁদের চকচকে

রৌপ্যরশ্মী জ্বলে ওঠে

তোমার বুকের সমুদ্রে জেগে ওঠা

নতুন চরে।

 

ফলো করুন- দিব্যপাঠ সাহিত্য ফোরাম

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *