একগুচ্ছ কবিতা: হৃদয় হোম চৌধুরী

ছায়া

কুয়াশার চাদরে তুমি ভূমিহীন প্রেম,

 

রোদের অভিমান সেজে জন্মরাগ উপদ্রব নিয়ে হাজির হলে

 

এবারে চক্রবুহ।

নির্লোভ চাতক বোঝে সেই বিষাদকহূক

প্রণয় ছেড়ে  কবিতা লিখলে

অচিরেই একটা আশৈশব সময় উঠে আসবে

 

হয়তো  ভালোবাসার অহমিকায় পলি পড়বে ফের

তুমি ফিরে যাবে হতাশায়,সঙ্গে আমার শেষ ছায়া।

 

আরও পড়ুন- নাহিদা আশরাফীর কবিতা

 

 জীবনলিপি

জীবনে ধস নেমেছে । পাহাড়ের ধস যেমন

আগলে ধরে চুমু এঁকে অসাড় করে জনপথ

 

তোমার বুঝি সরোবর বাদে রবীন্দ্রনাথ নেই

চেয়েছি সবুজপার্বন‌ হয়ে উঠুক আমাদেরও

‌                                      আবেশ

শীততাপ ঘরের চাদর ছেড়ে চলে এসে

গহীন অরণ্যে চুমক দেব অলীক জীবনবায়ু

অন্ধকার সরীসৃপ ছায়া ফেলে শিথানে

থেমে যায়, আবার এগিয়ে যায়

একসময় হারিয়ে যায়

 

অথচ আগামী সহবাসে সে পরম সঙ্গী।

 

 

 

 দ্বৈত

গাছের বাকলে গতদিনের বিষাদ জমা হয়

তুমি তবুও বিমোহিত

নোনাজল ছড়িয়ে নিয়ে যায় একদলা প্লাজমা

সব দেহরস ঠেলে উঠে আসে বাঁচার সমীকরণ

তবু আমি বিষের ঘূর্নিজালে থাকি শান্ত

পুরোনো বেদনাতে জাগে বিদ্রুপ, তীক্ষ্ণ জেদ

 

কি করো? এসব মুছে ফেলবে? কিন্তু যে ছাপ

জমে গেছে মনে

আর শেষ কফিনের সেই শোকার্ত শব্দের পেরেক;

এরাই এক সুপ্তরাতে

রুটি কাবাবের বাঁকে বাঁকে অক্ষর জমিয়েছিলো-

সেভাবেই চেতনার মুখোশে থেকে যায়

তোমার স্পর্শ কিংবা অপেক্ষারত রতি উৎসব

 

ফলো করুন- দিব্যপাঠ সাহিত্য পত্রিকা