মোহাম্মদ জসিম এর কবিতাগুচ্ছ

ঘড়িটি খাইরুন্নাহারকে চিনতো

 

(অ)সম্ভব ছিলো কি! যখন কথা বলছে রেলগাড়ী আর আতঙ্কে জুতো পরছো না। গাছের ডালে বসে পা দোলাচ্ছে ফল, একটা মাথাখারাপ ঘড়ি গিলে ফেলছে নিজেরই পেণ্ডুলাম…

 

ঘ ড়ি আর ঘ ড়ি…

 

মাতাল ঘড়ির কাঁটা ঘোরে

চাঁনকপালীর কপাল পোড়ে—

 

কঠিন কিছু মানসাংক আর ব্লাউজের মাপ নিয়ে নীরিক্ষা চলছে। অতনুকে চাকরি দিচ্ছে না সামান্য ভ্যানগাড়ি। যথাক্রমে সাত ও সতেরবার উলু দেবার পরও স্বপ্ন ভাঙছে হাস্না ও হেনার।

 

কোথায় যাবো বল হরি

থামাও ঘড়ি পায়ে পড়ি—

 

কেউ আসমান থেকে এসেছে, কেউ মাটি থেকে। মাঝমাঠে বিছিয়ে রেখেছে নীল নীল মেটে মেটে জীবনযাপন। ভাঙা আয়না ছুড়ে ফেলতে গিয়ে চারতলা থেকে নিজেকেই ছুড়ে দেন খাইরুন্নাহার।

 

থামবে ঘড়ি সময় কই!

যার পোড়ে তার সমস্তই—

 

মেঘ বলো না, বলো ধোঁয়া… সময়ের আঁচে পোড়া মিথ্যে বারবিকিউ আর ইডিয়টিক দাঁড়িয়ে থাকাগুলো।

 

আরও পড়ুন- রাখী সরদারের কবিতা

 

পালিয়ে বিয়ে করবে বলে ঘর ছেড়েছিলো একজোড়া ঘাস

ঘড়বাড়ি এঁটো হয়ে গেছে। আটবার পরা হয়ে গেছে শাড়ি। ছাড়ি ছাড়ি করেও ছাড়া হচ্ছে না ব্লাউজ। আমরা এবার বিয়ে করবো মাঝি…

 

মাঝি আর দরিয়া/ভাসমান প্রেমপুষ্প/ভার্জিন প্রদীপের গান

 

কামদরিয়ার বর্ণমালা

আমার মাঝির গতর কালা!

 

শা শা কুয়াশার মধ্যে শিশিরের জহরত দিও; ঘুমন্ত রুটি খাবো, আট নয় দশটি চুম্বন; পাল-নৌকা স্বপ্নের মধ্যে মাংসের তোরঙ্গ খুলে সাঁতার খেলবে তুমি।

 

দিনে জ্বালায় রাইতে জ্বালায়

আমার মাঝি বৈঠা চালায়—

 

মুখ তোলো মাঝি… সুখ সুখ খেলো… পলাতক ছায়ার মতো বিছিয়ে দিচ্ছি শাড়ি ও শরীর। তামাটে ত্বকের দেশে তুমি দিনরাত বর্ণমালা আঁকো।

 

ফুলের মেয়ের অতল গাঙে

মাঝির ব্যাটার বৈঠা ভাঙে!

 

যথরিতী—ভালবাসা হচ্ছে, ফেলে আসা গাঁয়ে পড়ে আছে তিতকুটে স্মৃতি। শুধু একবার বলেছি—”আমারে নিবা মাঝি লগে!”

 

আরও পড়ুন- শ্যামশ্রী রায় কর্মকারের কবিতা

 

 ফুলের কফিন

তৃতীয়ত—চুরমার কাচের চুড়ি আর পঙ্গু আসবাবের মধ্যে বসে আমরা নিজ নিজ প্রেমে তা দিচ্ছিলাম। আজ, সূর্যের উদয় হয়নি তাই দৃশ্যে কোন সূর্যাস্ত নেই।

 

ফ্লাওয়ারভাস/ফুলের কফিন/বাড়তি কিছু আয়ুর গল্প…

 

ফুলদানি যাও ফুল কুড়াও

প্রেমের শ্রাদ্ধে ফুল উড়াও—

 

ভাঙা ভাঙা প্রেম আর আলসেমি; বংশীবাদক স্নানে গেছে; ফল দেবো, ফুল দেবো না কেন জানতে পড়ে নাও সহীহ অযুহাতনামা।

 

ফুলদানি গো, ফুলবাহার!

রেশম রেশম চুল তাহার—

 

মৃতের বন্ধুরা সাইকেল চালিয়ে আসে; মৃতের প্রেমিক হয় আকাশমনি গাছ; মরাফুল ঝরাফুল সিনেমার টিকেট কেনে, সিনেমা দেখে না।

 

ফুলদানি গো—প্রেমের ফাঁদ

সবগুলো ফুল মরা চাঁদ…

 

ডিয়ার ক্রিটিকস…প্রেম কি জানেন তো! ফুলাদানিকে পেতে ফুলেরা স্বেচ্ছেমৃত্যু বেছে নেয়, ভাবতে পারেন!

 

ফলো করুন- দিব্যপাঠ সাহিত্য ফোরাম