কাজী বর্ণাঢ্য এর গুচ্ছ ছড়া

বাংলাদেশ

ক্ষেত খামারে উড়ে ঘুরে

প্রিয় মুখটি আঁকি,

গাছে গাছে আমি কাঁঠাল

আমিই দোয়েল পাখি।

পদ্মা নদীর ইলিশ আমি

আমিই শাপলা ফুল,

আমিই লালন রবীন্দ্রনাথ

বিদ্রোহী নজরুল।

স্বাধীনতার সূর্যশিশু

বেশতো আছি বেশ,

সজিব সবুজ পাতার মাঝে

আমিই বাংলাদেশ।

 

 

 

ফুলকুড়ানি

ফুলকুড়ানি ফুলের রাণী

মালা গাঁথে আর,

সকাল বিকাল বিক্রি করে

চালায় সে সংসার।

ভাইকে নিয়ে স্কুলে যায়

বোনকে শিখায় গান,

বাবার জন্য ঔষধ আনে

মায়ের জন্য পান।

ফুল কুড়ানি ফুলের রাণী

বাঁধে মাথার চুল,

দিনযাপনে আপন মনে

ফুটায় স্বপ্ন-ফুল।

 

 

 

স্বপ্নরাজ্য

হাট্টিমা টিম হাট্টিমা টিম

উড়ছে পঙ্খীরাজ,

ঘোড়ার পিঠে চড়ে যাচ্ছি

স্বপ্নরাজ্যে আজ।

 

হাট্টিমা টিম হাট্টিমা টিম

আনতে সোনার স্বপ্নের ডিম

দূর দেশে দিই পাড়ি,

লাল কমলা হলুদ টিয়ে

নানান রঙের স্বপ্ন নিয়ে

তবেই ফিরবো বাড়ি।

 

আরও পড়ুন- কবির হোসেনের কবিতা

 

একটি ছেলে

একটি ছেলে আঁকছে ছবি গাইছে মধুর গান

লিখছে দারুণ কাব্য-ছড়া করছে অভিমান।

খেলছে দাবা একলা একা করছে অভিনয়

এই ছেলেটা জোড়াসাঁকোর রবীন্দ্রনাথ নয়।

 

তার মনে রোজ রোদ উঠে আর পাখি উড়ে শত

হাসির হাওয়া দেয় বিলিয়ে সূর্যমুখীর মতো।

চাঁদের সাথে আড্ডা মেরে রাত্রি করে পাড়,

পরীর ডানায় আসন পেতে বেড়ায় চমৎকার।

 

পাঠশালা সে পাঠ করে না প্রকৃতি তার পাঠ

একটি ছেলে মন যেনো তার তেপান্তরের মাঠ।

 

ফলো করুন: দিব্যপাঠ সাহিত্য পত্রিকা