একগুচ্ছ ছড়া ও কবিতা: তাজ ইসলাম

দিদার

ক্লান্ত শ্রান্ত এক পৃথিবী  যাত্রা শেষে

শীতের রাতে লেপ মুড়ি দেয়া

শীতকাতুরে ঘুমের মতো সফেদ কাফনে

বেঘোর ঘুমে আচ্ছন্ন  মাটির বিছানায়।

 

ঘুম ভাঙতেই নির্জনতা, নিঃসঙ্গতার

ঢেউয়ে ভাসতে থাকা ক্ষুদ্র রিক্ত বনি আদম

তার পৃথিবী যাত্রার শেষ ইচ্ছা নিয়েই জাগতে চায় সে

কবরে যার একান্ত চাওয়া

তোমার দিদার হে তোমার দিদার।

 

নতুন জগতের যাত্রা হোক শুরু

তোমার দিদার দিয়ে হে তোমার দিদারে।

 

তোমার দিদারে যেন ভুলে যেতে পারে

ফেলে আসা মায়ার জনম

আর ফেলে আসা জগতের মায়া।

তোমার দিও হে প্রিয় তোমার দিদার।

 

 

বাংলাদেশ বাংলাদেশ

প্রসূতি মায়ের মতো কাতরায় দেশ

ছোপ ছোপ  রক্তে ভেজা দেশমাটি

প্রথম সন্তান প্রসবের আনন্দের মতো

আন্দোলিত হল ষোলই ডিসেম্বর।

বিজয় উল্লাসে নেচে ওঠে ভোর।

 

পাখির গানের মতো ভেসে আসে সুর,

খুশির ফল্গুধারা, নেচে ওঠে প্রাণ

দোল খায় লাল সবুজ পতাকা

মুক্তি জয়ী মানুষের কণ্ঠে কণ্ঠে শ্লোগান

বাংলাদেশ বাংলাদেশ বাংলাদেশ।

 

আকাশে লাল সবুজ পতাকার ঢেউ

আকাশে উড়ছে ঘুড়ি, উড়ছে যুদ্ধ বিমান

মাথানত নিয়াজী রেসকোর্স ময়দানে

ঘুড়ি কাটা কিশোর উল্লাসের মতো

লাফিয়ে ওঠে ষোলই ডিসেম্বর

আকাশে ছুড়তে থাকে মুষ্টিবদ্ধ হাত

কণ্ঠে কণ্ঠে শ্লোগান

বাংলাদেশ বাংলাদেশ।

 

বিজয় আনন্দ সবুজে সবুজে

গ্রামে ও নগরে।

শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত দেশ

বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ, আমার প্রাণের বাংলাদেশ।

 

অনুকবিতা

মানুষ চেনা কঠিন কিছু?

জি না

খুব সহজে যায় মানুষকে

চিনা।

কিভাবে কোন সূত্রে এবং

মর্মে?

সুক্ষ্মতর দৃষ্টি রাখুন

ঐ মানুষের  কর্মে।

 

 

তুমি

তুমি আলখাল্লা পরিহিত থাকো

তুমি জুব্বা পরে সামনে আসো

তুমি সুশ্রী, সুন্দরে থাকো ঢাকা

আমি তোমার কুৎসিত, কদাকার

দেখে ফেলি বারবার, প্রতিবার।

 

তুমি নিয়ে আসো প্রেম

আমি দেখি বিদ্বেষ

আমি পড়ে ফেলি প্রেমের

প্রলেপে ঢাকা ছলনা তোমার

 

তুমি মিষ্টি কথা নিয়ে আসো

তুমি মোহময় চাহনি নিয়ে আসো

আমি দেখি বিষাক্ত সাপের ফণা

লকলকে জিভ, চোয়ালের বিষদাঁত।

তোমার ধবধবে  শাদা জামার নিচে

বুক,বুকের প্রকোষ্ঠে যে হৃদয়

আমি তোমার হৃদয়ে রাখা

হিংসা ও লোভের কালো হরফগুলো পাঠ করে শিহরিত হই,

হই আতঙ্কিত।

 

তুমি আবার আসলে ইয়াজুজ-মাজুজের

প্রাচীর থেকে কিছু পাথর নিয়ে এসো

আমার তৃতীয় চক্ষু পাথরে বন্ধ করে দিলে

আমি অন্ধের মতো

তোমাকে ভালোবেসে যাব হে প্রিয়তম!

 

 

আমার একটা মার্কা চাই

ধুতরাফুলের মার্কা আছে

গোলাপ ফুলের চাই

চিল-শকুনির মার্কা আছে

কোকিল টিয়ার  নাই!

 

একটা মার্কা ডাকাতের আর

একটা মার্কা চোরের

একটা মার্কা  ঘুষখোরের আর

অন্যটা অসুরের।

 

অন্যদেশের দালাল যারা মার্কা তাদের এই

ব্যালট আছে দেশপ্রেমিকের মার্কা তাতে নেই।

 

মার্কা আছে অনেক তবু আমার মার্কা নাই আজ

এই ব্যালটে আমার জন্য একটা মার্কা চাই আজ।

 

কালো ধোঁয়ার মার্কা আছে

মুক্ত হাওয়ার নাই

স্বাধীন উড়ার মুক্ত আকাশ

স্বচ্ছ হাওয়া চাই

 

ভূমিদস্যুর মার্কা ওটা নদীখেকোর মার্কা এটা

এ মার্কাটা ধাপ্পাবাজের, স্বৈরাচারের সেটা।

অত্যাচারীর মার্কা এটা, খুনির মার্কা এ যে

এই শালারাই ভোটের সময় আসে মানুষ সেজে।

 

মিথ্যাবাদীর মার্কা আছে সুদখোরেরও আছে

ধর্ষকও যায় ভোট চাইতে ধর্ষিতারই কাছে

লুচ্চা – শুয়োর দখল করে পুরা ব্যালটটাই

ব্যালট খোঁজে দেখি কোন মার্কা আমার নাই।

আমার কোন মার্কা নাই মার্কা আমার চাই আজ

সৎ মানুষের মার্কা চাই আওয়াজ তোল ভাই আজ।

 

অন্ধকারের মার্কা আছে আলোর কেন নাই

এই সমাজে আমি একটা আলোর মার্কা চাই।

 

মানবতার শত্রু যে যে মার্কা এটা তার

এ মার্কাতে দিলে ভোট দেশ হবে ছারখার

 

মার্কা নিয়ে লাফায় দেখ মীর জাফরের ভাই

সিরাজ বলে এই ব্যালটে আমার মার্কা নাই।

 

আমার কোন মার্কা নাই মার্কা আমার চাই আজ

দেশপ্রেমিকের মার্কা চাই আওয়াজ তোল ভাই আজ।

 

এ মার্কাটা হারামখোরের খোদাদ্রোহীর ওটা

এ মার্কাতে দিলে ভোট লুটবে এদেশ গোটা।

 

সবুজপাতার মার্কা চাই

জোসনা চাঁদের মার্কা চাই

মার্কা চাই মার্কা চাই প্রভাত রাঙা আলোর

আমরা আছি সঙ্গে শুধু আলো এবং ভালোর।

মন্দ লোকের মার্কা আছে

ভালো লোকের মার্কা চাই

আমার কোন মার্কা নাই মার্কা আমার চাই আজ

ভালো লোকের মার্কা চাই আওয়াজ তোল তাই আজ।

 

টুইটারে ফলো করুন- দিব্যপাঠ সাহিত্য পত্রিকা 

আরো পড়ুন- সাঈদ কামালের গল্প- অপরুপ দোজখ