একগুচ্ছ কবিতা: মামুন সুলতান

কষ্টের পানাম-নগরী 

ব্রিটিশ-পিরিয়ড থেকে অষ্টবিলাতি দুঃখ

নীলসাগরের ঢেউয়ের মতো সুনীল শেখরে থৈ থৈ করে

বুকের কব্জায় চলে গ্রিল-হওয়া-

মোরগের পর্তুগিজ হতাশা

বেদনার ঘ্রাণ শুঁকে মেপে যাই কষ্টের পানাম-নগরী

 

গ্রিক সভ্যতার মতো নব্য আয়োজনে

দুঃখরা থিয়োরি বোনে

তক্ষকের মত বিড়বিড় করে কষ্টের তাসবিদানা

 

বুকটাকে বানিয়ে নেয় মোঘল সাম্রাজ্য

দুঃখ-সম্রাট তাতে সিংহাসন বানিয়ে বসে পড়ে

বুক চেপে আমাকেই শাসন করে

হরণ করে রাত্রির ঘুম

কণ্ঠ রোধ করে কেড়ে নেয় আমার সমস্ত আরাম

 

ব্রিটিশ যুগের ভারতবাসীর মতো দ্রোহে কেঁপে উঠি

অন্তরতলে অবগাহন করি অন্তরজলে

বিদুষী নারীর মত আমিও নীরবে সহ্য করি

যদিও ভেতর জ্বলে যায় মর্মদাহে…

 

আরও পড়ুন- সাঈদ কামালের গল্প- অপরুপ দোজখ

 

 উচ্ছ্বাসে এসো হে নারী 

ক্যালেন্ডারে চোখ রাখি

সন-তারিখ না গুনে অতোটা সময় হেলায় হেলায়

কেটে গেলো বুঝতেই পারিনি

কেটে যাচ্ছে আজো এই মিষ্টি-মুহূর্ত

 

সেদিনের আকাশও মেঘে মেঘে সখ্য ছিলো

বজ্রপাতে এতটুকু ভয় ছিলো না এ-বুকে

ভয়ে কাঁপেনি এইটুকু সানাই-নিষিক্ত ধ্বনিত হৃদয়

 

লাল বেনারসি পরে নথের রৌশনে

নাক্ষত্রিক সমাক্ষরে আমায় করেছো উজ্জ্বল হে নারী

তোমার গ্রহে আজও ঘুরি আজও সমান

প্রণয়ে প্রণীত হই

ইহাকেই প্রেম বলে বিলীন হই তোমার সর্বাঙ্গ সুন্দরে

 

কেটে যাচ্ছে মহুয়া মদিরা মাঙ্গলিক মৃদঙ্গ-সঙ্গীত

প্রাণজ প্রাঙ্গণে আজ প্রেম হোক প্রিয়-প্রসঙ্গ সুখ

উচ্ছ্বাসে এসো হে নারী উচ্চাঙ্গ উল্লাসে

জ্যেষ্ঠতম রাতে জ্যৈষ্ঠ নাচুক তোমার আঁচলে।

 

ক্যালেন্ডারের পাতায় অতো অস্থিরতা কেন

নিমিষ বদল হয় মুহূর্তে মুহূর্তে

সময়ের লাগাম নেই কেবল দৌড়ায়

আমিই কেবল পড়ে আছি তোমার বেনারসি তলে

 

ফলো করুন- দিব্যপাঠ সাহিত্য পত্রিকা