একগুচ্ছ কবিতা: আনিকা নাওয়ার

বিয়োগের সুর

তোমার কেন ভয় হয় না আমি জানি না!

পাতা শুকিয়ে গেলে কিংবা ভিড় কমে গেলে!

 

সাগরের ওই পারের মেরুর পাহাড়ে কত পাখি ছিল…

ডানার ঘ্রাণে ভাসাতো আকাশ।

হঠাৎ কি যেন ভেবে ভয় পেতো খুব।

 

বাড়ির পাশের ওই চঞ্চল মেয়েটা জঙ্গলে যে আস্ত একটা নদী তৈরি করেছিল,

পৃথিবীর যত ব্যথা-বিরোধ-বাস্তব একাই সয়ে যেতো

তার ও নাকি ভীষণ ভয়!

 

অথচ জলজ্যান্ত একটা নদ পুড়ে যায়

তুমি কেমন শীতল, নিস্পৃহ থাকো!

 

পৃথিবীতে কত কিছু ঘটে যায়, পথের বাতাসে মিশে যায়।

তুমি না হয় লুকিয়ে এক চিলতে ভয় এনো…

 

এই শহরে রাতের চোখ ছলছল,

বুক চিরে বের হয় দীর্ঘশ্বাস।

এখানে ভ্রষ্ট পথিকের চিৎকার শুনে না কেউ

এখানে আঘাতে আঘাতে সবাই ক্ষতবিক্ষত।

 

আচ্ছা মানচিত্রের বিপরীতে দাঁড়িয়েও,

এমন অভয়ে কি হবে তোমার কালাতিপাত?

 

এবার আর কিছুই না, শুধু তোমার ভয় হোক!

ভালোবাসার ভয়…

 

আমার যে চোখ বুজে এলো!

 

ফলো করুন- সাহিত্য পত্রিকা

 

শঙ্কিত অনুভব

আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজেকে দেখছি।

কেমন আছি আমি?

 

মনে হয় ভালোই আছি!

স্নিগ্ধ শিথিল মুখচ্ছবি,

জ্যোৎস্নাখচিত সারা দেহে জোনাকির খেলা।

কি সূক্ষ্ম মনোহর আমার শ্রী!

 

কেবল ভেতরে গেলেই নিষিক্ত ধোঁয়াশা, কালো মেঘ

কোথাও কোথাও জীর্ণ ধ্বংসস্তূপ

আর কালো শোকের শিলালিপি।

 

এই তো বেশ আছি!

 

জলে ভাসা দুচোখ কেউ দেখতে পায় না।

বুকে কত দীর্ঘশ্বাস কেউ আভাস পায় না।

আরো কত চিৎকার, মৃত্যু সংবাদ, ব্যথিত ব্যাকুল ইতিহাস…

আরো আরো কত কি!

 

আহ! কত নীরবে ভালো থেকে যাই আমি!

 

এত কালো মেঘ, এত কুয়াশা

ভেতরে কেবল পোড়াগন্ধ, অকালসন্ধ্যা

তবুও একটা উত্তর ‘ভালো আছি’।

কিন্তু এমন দুর্যোগ, অস্থির উন্মাদ নিয়ে এ আমার কেমন ভালো থাকা?

এত দ্বন্ধ-কোলাহল, মহামারী-দুর্ভিক্ষ!

আচ্ছা, এর চেয়েও কি বেশি ভালো থাকা যায়?

এমন বিক্ষুব্ধ মিছিল আর অন্তহীন আতঙ্ক নিয়ে এর চেয়েও কি বেশি ভালো থাকে মানুষ!

 

আরও পড়ুন- পলিয়ার ওয়াহিদের কবিতা

 

আঁধারে ছায়া

 

এই যে পৃথিবীটা দেখছো

মনে হয়

অন্ধকারের ছায়ায় হারিয়ে ফেলেছে নিজেকে।

এখানে সৈকত নেই, সমুদ্র নেই।

পথপাড়ে চেয়ে থাকে মৃত শান্ত ঘাস,

বাগানে ফোটে ক্ষত ফুল,

পাতার মর্মরে ভীষণ শব্দদূষণ,

বাতাসে ভাসে বোবা পাখির কলতান।

এসবের ঢের আগে যখন তোমার দেখা পেলাম

তখন পৃথিবীতে মানুষ ছিল।

স্নিগ্ধ মাধবী সৌরভ তাদের গায়।

অন্ধকারেই ছিল জোনাকির নিরাপদ আশ্রয়।

নক্ষত্রের আলোড়নে পৃথিবী ছিল সুখেই।

আজ তুমি কোথায়?

কোন আঁধারে?

নাকি তুমি পাখি?

তাই কি গেছো উড়ে?

আমার হৃদয় তো আকাশ! মহাকাশ!

মৃদু মেঘ, ফাগুনের জ্যোৎস্না আর জলকণায় ভরা চারপাশ।

এসো পাখি! ফিরে এসো তুমি!

আমি আছি

এই উৎসবেই আছি।

আর নেই ব্যস্ততা।

আর নেই তুমি।

 

আরও পড়ুন- জামিল হাদীর কবিতা

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *